বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ সার্জেন্ট মহি আলম
(এফ এফ গ্রুপ কমান্ডার ও অপারেশন নেতা)


সুশীল দে টিটু


যাত্রা হলো শুরু
বীর মুক্তিযুদ্ধা শহীদ সার্জেন্ট মহি আলম

গত কিছুদিন থেকে মনে একপ্রকার জেদ করেছিলাম যেভাবেই হোক বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ সার্জেন্ট মহি আলম এর বিলীন হয়ে যাওয়া কবরস্থান”টা খুঁজে বের করব। গত শুক্রবার সকালে – আমি, স্নেহভাজন হমায়ুন, অনুপ, শিমুল ও বঙ্কিম কে নিয়ে রওয়ানা দিলাম দূর্গম পাহাড় লাম্বাকাডা (প্রকাশ উতরের চেউঙ্গা) উদ্দেশ্যে। চলতিপথে শুধু অজানা একটা ভয় ছিল কখন বন্য হাতির পাল এসে আক্রমন করে তাই সতর্কতার সহিত এগোতে এগোতে একসময় পৌঁছেও গেলাম। প্রথমেই পুরো টিম হতবিহ্বল হয়ে গেলাম প্রকৃতি তার রুপ কতটা পরিবর্তন করতে পারে, না দেখে বিশ্বাস করা যাবেনা, পাহাড় ধ্বসে একেবারে বিলীন, তারপরও আমরা একসাথে খোঁজা শুরু করে দিলাম আমাদের পুরো টিমে তখন সবার মাঝে একপ্রকার টান টান উত্তেজনা।

আমাদের প্রথম উদ্দেশ্য কবর হয়ত খু্ঁজে পাওয়া যাবেনা অন্তত একটা ইট যদি খুঁজে বের করতে পারি তাহলে আমরা সফল মনে করব, প্রায় ৩ ঘন্টা খুঁজাখুঁজির পরও কোন আশার মুখ না দেখে একসময় চলে আসার সিদ্ধান্ত নিলাম। এরই মধ্যে আমাদের সহযোগীতায় এগিয়ে এলো পাহাড়ে লাকড়ি আনতে যাওয়া আমাদের পাড়ার লুলু দা ও বাণীগ্রাম এলাকার একজন মহিলা। তারা আমাদেরকে সহযোগীতা করাতে একসময় খুঁজে পেলাম জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ মহি আলমের বিলুপ্ত কবরস্থান টি যা মুল জায়গা থেকে প্রায় ২৫, ৩০ ফুট নীঁচে। লুলু’দা জানাল বছর দুয়েক আগেও মাথার খুলিটা নাকি দেখেছে। আমি একটা ইটকে কাঠি দিয়ে পরিস্কার করতে গিয়ে দেখলাম ইটের গায়ে লিখা M. 71 পুরো টিম তখন একপ্রকার নির্বাক হয়ে চেয়ে রইলাম। জানতে পারলাম দেশ স্বাধীনের পরবর্তী সময়ে বাণীগ্রাম সাধনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের তৎকালীন ছাত্ররা নিজেরা ইট বহন করে নিয়ে ওখানে কবরস্থান টা সংস্কার করেছিল।
প্রায় সাড়ে ৪ ঘন্টার অনুসন্ধান শেষ করে ফিরে আসার সময় টিমে সবার মধ্যে তখন এক প্রকার আনন্দ যেমন দেখলাম একপ্রকার ক্ষোভও ছিল।
মুক্তিযোদ্ধা রা (জীবিত কিংবা মৃত) জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। হয়ত দুর্ভাগ্য আমরা পরবর্তী প্রজন্মের জন্য জীবিত অনেক মুক্তিযোদ্ধা রা তাদের সহযোদ্ধা দের খবর নেওয়া তো দুরে থাক বিভিন্ন মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক আলোচনা সভায়ও তাদের স্মরণ করার প্রয়োজন মনে করেন না অথচ সরকার মুক্তিযোদ্ধা দের সর্বোত্তম সহযোগীতা করে নজির স্থাপন করে চলেছে।
বাঁশখালীর মুক্তিযোদ্ধা দের প্রতি বিনীত অনুরোধ বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ সার্জেন্ট মহি আলমের স্মৃতি রক্ষায় এগিয়ে আসুন, আমরা আপনাদের সহযোগীতা করব।।

পেয়ে গেলাম একটি M71 অঙ্কিত ইট

এই বিষয়টা আমার ওয়ালে পোস্ট করার ২৫ মিনিটের মধ্যে শহীদ সার্জেন্ট মহি আলমের স্মৃতি রক্ষায় এগিয়ে আসলেন আমাদের গর্ব বাঁশখালীর আরেক কৃতি সন্তান শ্রদ্ধেয় লেঃ কর্ণেল (অবঃ) তপন মিত্র চৌধুরী।

শেষ চিহ্ন এই ক’টা ইট

আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই প্রিয় দাদা Tapan M Chowdhury কে।।